• বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৩:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
তাকওয়া অর্জনের উপায় মুত্তাকীর পরিচয় ও তাদের প্রতিদান ২৫ বছরে বিয়ে না করলেই জনসম্মুখে অদ্ভুত শাস্তি! শেরপুরে পথচারী ও অটোরিকশা চালকদের মাঝে বিশুদ্ধ পানি ও খাবার স্যালাইন সহ মাথায় সান ক্যাপ পরালেন পৌর মেয়র লিটন শেরপুরের সীমান্তবর্তী গারো পাহাড়ের সবুজ বন পুড়ে ছাই সীমান্তবর্তী নালিতাবাড়ীতে বন্যহাতির আক্রমণে কৃষকের মৃত্যু শেরপুরে প্রচন্ড তাপদাহের কারনে পৌরসভার উদ্যোগে রাস্তায় পানি ছিটানো ও পথচারী ও শ্রমীকদের মাঝে বিশুদ্ধ পানি বিতরণ শেরপুরে নালিতাবাড়ী থানা ও ডিবি পুলিশের জব্দকৃত ১৮১ বোতল ভারতীয় মদ ধ্বংস শেরপুর প্রেসক্লাবের বিতর্কিত কমিটি ভেঙ্গে নয়া কমিটি ঘোষণা  শ্রীবরদীতে সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে কিন্ডারগার্টেন গুলোতে পাঠদান
বিজ্ঞপ্তিঃ
🌏 শেরপুর জেলার প্রতিমুহূর্তের খবর পেতে ভিজিট করুন www.sherpurtoday.com ও www.facebook.com/sherpurtoday শেরপুর টুডে ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন www.youtube.com/sherpurtoday 🌏 আপনার কোম্পানি/পণ্যের বিজ্ঞাপন দিতে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন : ০১৯১৪-৮৫৪৪৩৯ 🌏

২ কোটি ২৭ লাখ কৃষককে স্মার্ট কার্ড দেওয়া হবে

শেরপুর টুডে ডেস্ক | শেরপুরটুডে.কম
আপডেটঃ : মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২৩

বিশেষ প্রতিনিধি: দেশের ২ কোটি ২৭ লাখ ৫৩ হাজার ৩২১টি কৃষক পরিবারকে ‘কৃষক স্মার্ট কার্ড’ দেওয়া হবে। এর মাধ্যমে ডিজিটাল কৃষি সেবার সম্প্রসারণ করা হবে। ‘পার্টনার’ নামে সরকারের নেওয়া একটি মেগা প্রকল্পের মাধ্যমে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

বুধবার (১১ অক্টোবর) রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে আয়োজিত এক কর্মশালায় এই প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়। প্রোগ্রাম অন অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড রুরাল ট্রান্সফরমেশন ফর নিউট্রিশন এন্ট্রাপ্রেনিউরশিপ অ্যান্ড রেসিলিয়েন্স ইন বাংলাদেশ (পার্টনার) নামের এ প্রকল্পের ব্যয় প্রায় ৭ হাজার কোটি টাকা। এটি কৃষির উন্নয়নে এখন পর্যন্ত নেওয়া সবচেয়ে বড় প্রকল্প। এতে অর্থায়ন করছে বিশ্বব্যাংক ও জাতিসংঘের কৃষি উন্নয়ন তহবিল (ইফাদ)।
প্রকল্পটির উদ্বোধন করেন কৃষিসচিব ওয়াহিদা আক্তার। এ সময় বিশ্বব্যাংক ও ইফাদকে ধন্যবাদ জানান তিনি। অত্যন্ত স্বচ্ছতা ও দক্ষতার সঙ্গে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য প্রকল্প পরিচালক ও সংশ্লিষ্টদের আহ্বান জানান।
প্রকল্পটির মাধ্যমে ৩ লাখ হেক্টর ফল ও সবজির আবাদি জমি বাড়ানো হবে। জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত সহনশীল উচ্চফলনশীল নতুন ধানের জাত ও অন্যান্য দানাদার ফসলের জাত উদ্ভাবন করা হবে। উন্নত ও দক্ষ সেচ প্রযুক্তির মাধ্যমে ১ লাখ হেক্টর নতুন আবাদি জমি সেচের আওতায় আনা হবে।
কর্মশালায় জানানো হয়, পার্টনার প্রকল্পটি পাঁচ বছরে বাস্তবায়ন করা হবে। ৬৪ জেলার ৪৯৫ উপজেলায় এ বছরের জুলাই থেকে ২০২৮ সালের জুন পর্যন্ত প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। ব্যয় ধরা হয়েছে ৬ হাজার ৯১০ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকারি অর্থায়ন ১ হাজার ১৫১ কোটি টাকা। আর প্রকল্প সাহায্য হিসেবে বিশ্বব্যাংক দিচ্ছে ৫ হাজার ৩০০ কোটি টাকা ও ইফাদ দিচ্ছে ৫০০ কোটি টাকা।
কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন ৭টি সংস্থা তাদের নির্ধারিত কার্যক্ষেত্রে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে। সেখানে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর প্রধান সংস্থা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে। পাশাপাশি কৃষি মন্ত্রণালয়ের আরও ৮টি সংস্থা এই প্রকল্পে কৌশলগত সহযোগী হিসেবে কাজ করছে।
প্রকল্পের আওতায় ই-ভাউচারে কৃষকদের ভর্তুকি দেওয়া হবে। কৃষকদের জন্য তৈরি হবে কৃষক ডিজিটাল ফিন্যান্সিয়াল সিস্টেম। মোবাইল প্ল্যান্ট ক্লিনিকের মাধ্যমে কৃষি সম্প্রসারণ সেবাকে কৃষকের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়া হবে। ড্রিপ, স্প্রিংকলার, এডব্লিউডি ও ভূগর্ভস্থ সেচ নালাসহ সৌরশক্তি ব্যবহার করে সেচের পানি ব্যবস্থাপনায় যুগান্তকারী পরিবর্তনের মাধ্যমে পানির অপচয় হ্রাস করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ