এক পরিবারের পাঁচ জনই প্রতিবন্ধীঃ ৫হাজার টাকায় এক জন পেলেও ৪ জনের ভাগ্যে জুটেনি প্রতিবন্ধী ভাতা’র কার্ড

মোঃ তারিফুল আলম তমাল: শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে পাঁচ সদস্যের এক পরিবারের পাঁচ জনই প্রতিবন্ধী। এদের মধ্যে পরিবার প্রধান রফিকুল ইসলাম(৪৫) ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে একটি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড পেলেও বাকি ৪ জনের ভাগ্যে জুটেনি প্রতিবন্ধী ভাতা’র কার্ড। রফিকুল ইসলাম উপজেলার ধানশাইল ইউনিয়নের কান্দুলী মাঝাপাড়া গ্রামের মৃত সেকান্দর আলীর ছেলে। জানা গেছে, তিনি জন্ম থেকেই বোবা। কোন কথা বলতে পারেন না। তার স্ত্রী অজুফা বেগম (৩৭) কথা বলতে পারলেও কানে সোনেন না। ছেলে আক্কাস আলী (১৪), ও (১০) আশরাফুল মেয়ে রিমি (৪) বোবা। রফিকুল ইসলাম এক জন দিনমজুর। সহায় সম্বল বলতে বসতবাড়ির ৫ শতাংশ জমি আর একটি ঘর ছাড়া তার আর কিছুই নেই। রফিকুল ইসলাম কথা বলতে না পারলেও ইশারায় সবকিছুই বুঝেন। দিনমজুরী করে চলে তার সংসার। প্রতিবেশীরা জানান, যখন হাতে কাজ না থাকে তখন অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটে রফিকুল ইসলামের পরিবারের সদস্যদের। স্হানীয়রা জানান, রফিকুল ইসলাম ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে একটি প্রতিবন্ধী ভাতা’র কার্ড পেলেও বাকি ৪ জনের ভাগ্যে আজো জুটেনি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড । বর্তমানে অনাহারে অর্ধাহারে মানবেতর জীবনযাপন করছে পরিবারটি। ধানশাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম বলেন পরিবার প্রধান রফিকুল ইসলামকে একটি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড দেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকিদেরকেও দেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *