ভুরুঙ্গামারীতে চার মাসেও ভিজিডির চাল পায়নি ছয়টি ইউনিয়নের ২৪১০ জন উপকারভোগি

মোঃ মনিরুজ্জামান কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারীতে গত চার মাসেও ভিজিডির চাল পায়নি ছয়টি ইউনিয়নের ২৪১০জন উপকার ভোগি। উপজেলা দুঃস্থ মহিলা উন্নয়ন ( ভালনারেবল গ্রূপ ডেভেলপমেন্ট- ভিজিডি) কর্মসূচির আওতায় উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে মোট ৩৫৬১ জন উপকার ভোগির তালিকা করাহয়েছে। ১ জানুয়ারি ২০১৯ হতে ৩১ডিসেম্বর ২০২০ চক্রের আওতায় ভিজিডিরসদস্যদের মাঝে খাদ্য সহায়তা হিসেবে প্রতিমাসে ৩০ কেজি করে চাল দেওয়ার কথা। প্রত্যেক মাসের ১৫ তারিখ থেকে ২২ তারিখের মধ্যে চাল বিতরণের বিধান থাকলেও চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে এখন পর্যন্ত  উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে কোন চাল বিতরণ করা হয় নাই । বাংলাদেশ সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রমের আওতায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়াধীন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর মাঠ পর্যায়ে এই ভিজিডি কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে আসছে। জানাগেছে , তালিকা অনুযায়ী পাথর ডুবী ইউনিয়নে ৩৬৮ জন, শিলখুড়ি ইউনিয়নে ৩৪৭ জন, তিলাই ইউনিয়নে ২৬২জন, পাইকেরছরা ইউনিয়নে ৩৯৪ জন, ভুরুঙ্গামারী ইউনিয়নে ৬৭৬ জন, জয়মনিরহাট ইউনিয়নে ২৬৯ জন, আন্ধারিঝার ইউনিয়নে ৩৪৬ জন, বলদিয়া ইউনিয়নে ৩৬৪ জন, চর ভুরুঙ্গামারীইউনিয়নে ২৩৭ জন ও বঙ্গসোনাহাট ইউনিয়নে ২৯৯ জন উপকার ভোগি রয়েজে। এর মধ্যে শিলখুড়ি, জয়মনিরহাট, চরভুরুঙ্গামারি ও সোনাহাট ইউনিয়নে চালবিতরণ করা হলেও অন্য ৬ টি ইউনিয়নে চালবিতরণ করা হয়নি। চাল বিতরণ না হওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিলাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফরিদুল হক শাহিন শিকদার বলেন- চাল উত্তোলন করে গুদামে রাখা আছে। কিন্তু মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার অফিস থেকে চুড়ান্ত তালিকার অনুমোদন না পাওয়ায় চাল বিতরণ করা সম্ভব হয় নাই । এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা জিন্নাত আরা জানান জাতীয় ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ইসিথেকে একটি নির্দেশনা জারির কারণে চুড়ান্ত তালিকা করা সম্ভব হয় নাই। এ চাড়াও ইউপি চেয়ারম্যানরা বিলম্বে তালিকা জমা দেওয়ায় এই জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে। বাকি ইউনিয়ন গুলোতে চাল খুব দ্রূত বিতরণের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *