ভুরুঙ্গামারীতে ইরি-বোরো ধানের বাম্পার ফলন, দামে হতাশ কৃষক!

মোঃমনিরুজ্জামান, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রাম জেলার শস্য ভান্ডার খ্যাতভুরুঙ্গামারী উপজেলায় এবার ইরি-বোরোধানের বাম্পার হয়েছে। দিগন্ত জোড়াফসলের মাঠে দোল খাচ্ছে পাকা ধানেরসোনালী শীষ। ইরি বোরো ধান কাটা শুরুহয়েছে । কৃষকের গোলায় ওঠতে শুরুকরেছে নতুন ধান। কিন্তু তৃপ্তি নেই কৃষকেরমনে, হাসি নেই মুখে। ধানের দামে একেবারেহতাশ কৃষক। বর্তমানে হাট বাজারে ধানেরদাম কম হওয়ায় দিশে হারা হয়ে পড়েছে ভুরুঙ্গামারীর কৃষকরা। উপজেলার ১০টিইউনিয়নের বিভিন্ন হাট বাজার ঘুরে ওকৃষকদের সাথে কথা বলে জানাগেছে- প্রতিমণ ধান ৪০০টাকা থেকে ৪৫০ টাকা দরেবিক্রি হচ্ছে । যা গত বারের চেয়ে প্রায় ২৫০টাকা কমে প্রতি মণ ধান বাজারে বিক্রি হচ্ছে। উপজেলার কামাত আঙ্গারীয়া গ্রামেরকৃষক শহিদুল ইসলাম জানান – চলতিমৌসুমে তিনি ৫ বিঘা জমিতে বিভিন্ন জাতেরধান চাষ করেছেন । ফলনও বেশ ভালোহয়েছে । প্রতি বিঘায় (৩৩ শতক) প্রায় ২৭/২৮মণ ধান হবে । প্রতি মণ ধান ৪২০ টাকা দরেবিক্রি করতে হচ্ছে। অথচ একটি কামলারদৈনিক মজুরি দিতে হচ্ছে ৪৫০ টাকা । এতেকোনো মতে উৎপাদন খরচ ওঠলেও লাভেলমুখ দেখছেন না কৃষক।  উপজেলা কৃষিঅফিস সূত্রে জানা গেছে চলতি মৌসুমেভুরুঙ্গামারী উপজেলার ১০টি ইউনিয়নেমোট ১৫৭৮৮ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো ধানচাষের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল । কিন্তু কৃষক নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা ছারিয়ে১৫৯৫০ হেক্টর জমিতে ধান চাষ করে। আরউৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে৭৬৪২৯ মেট্রিক টন। উপজেলা কৃষিঅফিসার মাসুদুর রহমান বলেন- এবারকৃষকরা তাদের চাহিদা মত বিভিন্ন কৃষিউপকরণ পাওয়ায় নির্বিঘ্নে ইরি বোরো ধানচাষ করতে পেরেছে। ফলনও বেশ ভালোহয়েছে। তবে দাম কম হওয়ায় কিছুটা হতাশকৃষকরা।

এদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধীকসূত্রে কথা বলে জানা গেছে, একটিপ্রভাবশালী চক্র সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ধানেরসর্বনিম্ন মূল্য নির্ধারণ করে কৃষককে জিম্মিকরে নাম মাত্র মূল্যে ধান ক্রয় করছে। এতেকরে কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্চে । এ বিষয়েজানতে চাইলে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অমূল্য কুমার সরকার জানান- চলতিমৌসুমে ভুরুঙ্গামারী উপজেলায় ৪৫১মেট্রিক টন ধান প্রতি কেজি ২৬ টাকা দরে ও৪১০০ মেট্রিক টন চাল প্রতি কেজি ৩৬ টাকাদরে ক্রয় করা হবে। যা সরকার কর্তৃক মূল্যও লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত। উপজেলার সচেতনমহল

সরকার কর্তৃক নির্ধারিত মূল্যে প্রকৃত কৃষকদের  নিকট থেকে সরাসরি ধান ক্রয়ের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *